Header Ads

sylhettoday news top advertise

সেই নিখোঁজ টমটম চালকের লাশ পেল পুলিশ


সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে নিখোঁজের ১১ দিন পর সেই ইজি-বাইক (টমটম গাড়ী) চালক সাইদুল ইসলামের (১৭) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আজ বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ টমটম চালক সাইদুলের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

জগন্নাথপুর থানার ওসি (তদন্ত) নব গোপাল দাস লাশের খবর নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে, রাত সোয়া ১২টার দিকে জগন্নাথপুর থানার ওসি (তদন্ত) নব গোপাল দাস সিলেটটুডে ডটকমকে বলেন, সিলেটের রশিদপুর এলাকায় নিখোঁজ টমটম চালকের লাশের খবর পেয়ে আমরা লাশ উদ্ধারের জন্য ঘটনাস্থলে যাওয়ার জন্য রওয়ানা হচ্ছি। এবং লাশ উদ্ধার কাজ শেষে ফিরে লাশের খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে তিনি বলেন, আমরা লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে এসেছি। লাশটি অনেকটা পচে গেছে। তাৎক্ষনিকভাবে তিনি এর চেয়ে বেশি কিছু জানাতে পারেন নি।

প্রসঙ্গত, জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের বাউরকাডপন এলাকার মৃত শফিক মিয়ার ছেলে সাইদুল ইসলাম (১৭) গত ১১ আগষ্ট (ঈদের আগের দিন রোববার) সকাল বাড়ি থেকে টমটম গাড়ি নিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলার পাশবর্তী বিশ্বনাথ উপজেলার  বাগিচা বাজারের উদ্যেশ্যে বের হন। এরপর থেকে তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি  বন্ধ পাওয়া যায়। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার কোন সন্ধান না পেয়ে নিখোঁজের বড় ভাই ১১ আগষ্ট জগন্নাথপুর থানায় একটি জিডি দায়ের করেন।

নিখোঁজের বড়ভাই রিয়াজুল হক স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন। তার ভাই জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে প্রতিদিন টমটম গাড়ী চালাতো। গত ১০ আগষ্ট বিশ্বনাথের বাগিচাবাজারের ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী রাসেল মিয়া তার ভাঙ্গারীর মালামাল ১১ আগষ্ট জগন্নাথপুর পৌরএলাকার ভবেরবাজারে পৌছে দেওয়ার জন্য চুক্তি করেন। চুক্তি মোতাবেক ১১ আগষ্ট সকালের দিকে গাড়ী নিয়ে বাড়ী থেকে বাগিচার বাজারে যাওয়ার জন্য বের হয়। বাড়ি ফিরতে দেরি দেখে  তার ভাইয়ের মুঠোফোনে কল দেন । কিন্তু ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। তারা বাগিচাবাজারে গিয়েও তার ভাইয়ের সন্ধান পাইনি। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার কোন সন্ধান না পেয়ে জগন্নাথপুর থানায় একটি জিডি দায়ের করেন।

আরো পড়ুন:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ