Header Ads

sylhettoday news top advertise

বিদ্যুৎ যায় না, আসে

বিদ্যুৎ যায় না, আসে

বিদ্যুৎ যায় না -এমন কথা শুনলে অনেকেই অবাক হবেন। তবে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের ক্ষেত্রে কথাটা একটু ঘুরিয়ে নিলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। কমলগঞ্জে এখন বিদ্যুৎ যায় না, মাঝে মাঝে আসে। গ্রিড লাইন, তেত্রিশ হাজার কেভি প্রধান বিদ্যুৎ লাইনে ত্রুটির অজুহাতে প্রতিদিন চার, পাঁচ ঘণ্টা করে বিদ্যুৎ থাকছে না এ উপজেলায়। ঈদের পূর্ব থেকেই কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের অধীনস্থ এলাকায় এ সমস্যা ঘটছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত চার দফায় ৬ ঘণ্টা বিদ্যুৎবিহীন ছিল এ উপজেলা। বিদ্যুতোর এ ভোগান্তির ফলে চা কারখানা, বিভিন্ন মিল কারখানা ও অর্ধলক্ষাধিক গ্রাহক প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।  বলে অভিযোগ উঠেছে। ঢালাওভাবে সমস্যার কথা স্বীকার না করলেও মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দাবি তবে তেত্রিশ হাজার কেভি প্রধান লাইন ও গ্রিডে সমস্যার কারণে সামান্য ত্রুটি ঘটছে।

মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কমলগঞ্জ জোনাল অফিস সূত্রে জানা যায়, এই অফিসের অধীনস্থ প্রায় ৯০ হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক রয়েছেন। কমলগঞ্জ উপজেলা ছাড়াও কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলার একাংশ সম্পৃক্ত রয়েছে এর সাথে। গত দুই বছরে গ্রাহক সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হওয়ায় লোড বেড়ে যাওয়ার কারণে গ্রিড লাইন ও তেত্রিশ হাজার কেভি প্রধান বিদ্যুৎ লাইনে সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। গত দু’মাস যাবত উপজেলার অধীনস্থ বিদ্যুৎ ব্যবস্থা মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।

শমসেরনগর বাজারের ব্যবসায়ী আব্দুল মোত্তাকিন, রুমেল আহমদ, রফিক মিয়া, কলেজ শিক্ষার্থী নীলিমা সুলতানা, শাহান আহমদ বলেন, প্রতিদিন দিনে ও রাতে কোনো কারণ ছাড়াই দুই তিন দফা বিদ্যুৎ চলে যায়। এ সময়ে চার, পাঁচ ঘন্টা করে বিদ্যুৎ পাওয়া যায় না। এতে ব্যবসা-বাণিজ্য, পড়াশুনায় মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটছে বলে তারা অভিযোগ করেন। তারা জানান, বিদ্যুৎ অফিসে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে কেউ ফোন রিসিভ করেন না।

শমসেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও চা শ্রমিক নেতা সীতারাম বীন মঙ্গলবার বিকেলে বলেন, এখন পর্যন্ত চার দফায় ৬ ঘণ্টার মতো বিদ্যুৎ নেই। দিনের অবশিষ্ট সময় ও রাতে আরও কতবার বিদ্যুৎ আসা যাওয়া করবে তার হিসেব নেই। তিনি আরও বলেন, এভাবে বিদ্যুৎ আসা যাওয়ার কারণে চা বাগানে চা কারখানায় উৎপাদনে ব্যাঘাত সৃষ্টি হচ্ছে।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার কুলাউড়া গ্রিডে পাওয়ার সাপ্লাই সমস্যার কারণে ত্রুটি দেখা দেওয়ায় কয়েক দফা বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঘটে।

অভিযোগের বিষয়ে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কমলগঞ্জ জোনাল অফিসের ওবায়দুল হক বলেন, কুলাউড়ায় গ্রিড ও তেত্রিশ হাজার কেভি প্রধান লাইনে ঘন ঘন বিপর্যয় ঘটছে। ফলে পূর্ব থেকে কোন নোটিশ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। তবে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লাইনম্যানরা যথাসাধ্য কাজ করে দ্রুত সময়ের মধ্যে সংযোগ প্রদান করা হচ্ছে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ