Header Ads

sylhettoday news top advertise

ওসমানী মেডিকেলে ফার্মেসি দালালদের হামলায় ৩ প্রভাষকসহ আহত ৭

ওসমানী মেডিকেলে ফার্মেসি দালালদের হামলায় ২ প্রবাষকসহ আহত ৭

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেলের দালাল ও ফার্মেসি মালিকের হামলায় ৩ প্রভাষকসহ ৭ জন আহত হয়েছেন। ২৫০০ টাকার ঔষধে ৯০০০ টাকা বিল দাবি করায় স্বজনরা টাকা না দেয়ায় তাদের উপর হামলা চালায় ফার্মেসি কর্তৃপক্ষ।

রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার দিকে নগরীর দক্ষিণ কাজলশাহ এলাকায় ওসমানী মেডিকেলের ইমার্জেন্সি গেইটের সামনে অবস্থিত রিংকি ফার্মেসিতে এ ঘটনা ঘটেছে।

আহতরা হচ্ছেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ইমরান আহমদ কারিগরি কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল ও বর্ণি গ্রামের বাসিন্দা কামাল আহমদ, কলেজের প্রভাষক একই গ্রামের বশিরুল ইসলাম সোহেল, একই গ্রামের কামাল উদ্দিন, মহিষখেড় গ্রামের বাসিন্দা ও স্থানীয় খাগাইল বাজারের ফার্মেসি ব্যবসায়ী দিলদার হোসেন, গৌরীনগর গ্রামের বাসিন্দা রুবেল আহমদ, একই গ্রামের আশরাফ উদ্দিন এবং সিএনজি অটোরিকশা চালক আকবর আলী।

প্রত্যক্ষদর্শী এবং আহতরা জানিয়েছেন, রবিবার দুপুরে কোম্পানীগঞ্জ সিলেট সড়কে ট্রাক ও সিএনজি অটোরিকশা মুখোমুখি সংঘর্ষে মারাত্মক আহত ইমরান আহমদ কারিগরি কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র বর্ণি গ্রামের নোমান আহমদ এবং অন্য আহতদের উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেলে নিয়ে আসেন স্থানীয়রা। খবর পেয়ে হাসপাতালে আসেন কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল কামাল আহমদ ও প্রভাষক বশিরুল ইসলামসহ আরো অনেকে।

কর্তব্যরত ডাক্তার একটি স্লিপ দিয়ে ওষুধ নিয়ে আসতে বলেন রোগীর সাথে থাকা আকবর আলী নামের এক অটোরিকশা চালককে। তিনি ওষুধ আনতে বের হলে এক দালাল তার পিছু নেয়। টাকা বাকি রেখে ওষুধ আনার প্রলোভন দেখিয়ে আকবর আলীকে হাসপাতালের ইমার্জেন্সি গেইট সংলগ্ন রিংকি ফার্মেসিতে নিয়ে যায় ওই দালাল। ফার্মেসির মালিক ছালেহ আহমদ স্লিপটি হাতে নিয়ে কর্মচারীদের ওষুধ দেবার নির্দেশ দেন। কর্মচারীরা ওষুধ ব্যাগে ভরে হাসপাতালে দেয়া ডাক্তারের স্লিপটি রেখে দেন। ওষুধের মূল্য ৯ হাজার বলে জানান।

আকবর আলী ওষুধ নিয়ে হাসপাতালে আসার পর কর্তব্যরত ডাক্তার স্লিপটি দিতে বলেন। স্বজনরা দাম শুনে ডাক্তারকে ঔষধ দেখিয়ে দাম জিজ্ঞেস করেন ডাক্তার বলেন এখানে পঁচিশশো টাকার মত ঔষধ আছে।

তখন ইমরান আহমদ কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল কামাল হোসেন, প্রভাষক বশিরুল ইসলামসহ অন্যান্যরা ওষুধগুলো নিয়ে রিংকি ফার্মেসিতে ফেরত যান। রোগীর আত্মীয় ও কোম্পানীগঞ্জের খাগাইল বাজারের ফার্মেসি ব্যবসায়ী দিলদার হোসেন ওষুধগুলো রিংকি ফার্মেসির মালিক ছালেহ আহমদকে দেখিয়ে দাম জিজ্ঞেস করেন। তখন ছালেহ আহমদ ওষুধের মূল্য ৯ হাজার টাকা দাবি করেন। তখন তারা মেমো দিতে বললে মেমো দেয়া যাবে না বলে জানায় ফার্মেসির স্টাফরা। এ নিয়ে ফার্মেসি পক্ষ ও রোগির স্বজনদের মধ্যে বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয় এবং মেমো না দিলে টাকা দিবেন না বলে জানান তারা।

এক পর্যায়ে রিংকি ফার্মেসির মালিক ওসমানীনগর উপজেলার তাজপুর এলাকার বাসিন্দা ছালেহ আহমদ, নগরীর বাগবাড়ি এলাকার সন্ত্রাসী ও অবৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ী পাখি সোহেলের ভাই ফামের্সির ম্যানেজার সুমন আহমদসহ দোকানের কর্মচারি এবং দশ-পনেরো জন দালাল মিলে রোগীর স্বজনদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।

ফার্মেসি মালিক ছলেহ আহমদ ও ম্যানেজার সুমন এবং দালালরা মিলে প্রায় আধঘন্টারও বেশি সময় ধরে তাদের হাতে থাকা কাঁচি স্টেপ করে এবং অস্ত্রশস্ত্র লাঠিসোটা, রড ও স্টিলের পাইপ দিয়ে বেধড়কভাবে তাদেরকে মারধর করে। এতে কলেজের ৩ প্রবাষকসহ ৭ জন আহত হন।

এরমধ্যে কলেজের প্রভাষক বশিরুল ইসলাম, দিলদার হোসেন এবং আশরাফের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ঘটনার পরপরই  দোকানের সাটার লাগিয়ে এলাকা থেকে পলায়ন করে রিংকি ফার্মেসির মালিক সালেহ আহমদ, ফার্মেসির স্টাফ ও এই ফার্মেসির দালালরা।

এদিকে, ঘটনার খবর পেয়ে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম মিঞা তার ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন এবং আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।

বর্তমানে আহতরা ওসমানী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন আছেন। এ ঘটনায় ইমরান আহমদ কলেজের অধ্যক্ষ মো. রুহুল আমিন বাদি হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেন।

সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি সেলিম মিঞা জানান, ঘটনার সংবাদ শুনেই আমরা তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই এবং আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করি। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানান তিনি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ