Header Ads

সিলেট টুডে: আমাদের জন্য লিখুন

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সিলেটের সেই ডাক্তার আর নেই

করোনা আক্রান্ত সিলেটের ডা. মঈন উদ্দিন আর নেই

কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দিন। আজ বুধবার (১৫ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৪টায় ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন।

তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) এর মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল।

ডা. মঈন উদ্দিন ছিলেন সিলেটের প্রথম করোনা রোগী। গত ৫ এপ্রিল তার শরীরে করোনা রোগ ধরা পড়ে। রোগ ধরা পড়ার পর চিকিৎকদের পরামর্শমতে তিনি বাসায় কোয়ারেন্টিন অবস্থায় চিকিৎসা নিতে থাকেন। কোয়ারেন্টিনের আওতায় নিয়ে আসা হয় তার পরিবারের বাকি সদস্যদের এবং পুরো হাউজিং এস্টেট এলাকা লকডাউন করা হয়।

এদিকে, তার শরীরের অবস্থা খারাপের দিকে গেলে ৭ এপ্রিল তিনি নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি হন। শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হলে ৮ এপ্রিল সেখান থেকে পরিবারের ইচ্ছায় চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই ৭দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর আজ ভোর সাড়ে ৪টায় তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

করোনাভাইরাসে মৃত্যুবরণকারী ডা. মঈন উদ্দিনকে সিলেটেই দাফন হবে । ঢাকার লাশ দাফনকারী প্রতিষ্ঠান আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামের পক্ষ থেকে ডা. মঈন উদ্দিনকে গোসল দেয়া হয়েছে এবং মরদেহে কাফন পরানো হয়েছে। পরে বেলা ২টার দিকে এ্যাম্বুলেন্সে করে ডা. মঈন উদ্দিনের কফিনবন্দি লাশ নিয়ে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন স্বজনরা। তার সঙ্গে আছেন স্ত্রী ডা. ইসরাত জাহান। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ মেডিকেল এ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ)-এর মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল।

সিলেটে পৌঁছার পর সংক্রমণ বিধি অনুযায়ী ডা. মঈন উদ্দিনের লাশ দাফন করা হবে বলে জানা গেছে। তার দাফন তার গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতকে হবে বলে জানা গেছে।

এর আগে সিলেটে করোনা আক্রান্ত প্রথম রোগী ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দিন আজ বুধবার (১৫ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৪টায় ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। গত ৫ এপ্রিল তার শরীরে করোনা রোগ ধরা পড়ে। পরে চিকিৎকদের পরামর্শমতে তিনি বাসায় কোয়ারেন্টিন অবস্থায় চিকিৎসা নিতে থাকেন। তার শরীরিক অবস্থার উন্নতি না হলে ৭ এপ্রিল তিনি নগরীর শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি হন।

৮ এপ্রিল সেখান থেকে পরিবারের ইচ্ছায় চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেয়া হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় গত সোমবার হাসপাতালের লাইফ সাপোর্টে রাখা হয় তাকে। সেখানেই  চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোর সাড়ে ৪টায় তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য